গাজাবিষয়ক মফস্বল ভাবনা

ফিলিস্তিন

ফজরের আযান পড়ে গেল
চোখের পাতা তবুও চড়ে না
পাহারা দেয় ইসরায়েলি রাত
মাথার বালিশ যেন ফিলিস্তিন!

ফিলিস্তিনি শিশু

এখনো বেঁচে আছি
পায়ের পাতা এগিয়ে দিচ্ছে
জীবনের দিকে
যদিও এখনো বুঝতে পারিনি কাকে যুদ্ধ বলে
কিসের অপরাধে কারো ঘর ভেঙে দেয়া যায়

আমি হেঁটে যাচ্ছি
নিশ্চিত মরণের দিকে
কারণ আমাকে লক্ষ্য করে
একটু পরেই বোমা ছোড়া হবে
কোথায় আমার বাবা মা?
স্বজনেরা?
প্রতিবেশিরাই বা কোথায়?
আমাদের উঠোন কই?
খেলার মাঠ?

কীভাবে বাঁচতে হয়
কেমন করে মরতে হবে
আমি এখনও কিছু বুঝতে শিখিনি
আমি আসলে কোথায় যাচ্ছি ?

আমি ধ্বংস বুঝি না
না জন্মও
আমার কি ড্রিম আছে?
আমি কে?
আমি ফিলিস্তিনি শিশু
আমার বাঁচার অধিকার নেই!

দেখো আমার চোখ কত নিষ্পাপ
এবং ভয়ডরহীন
তবে কে আমার মুখে চুনকালি মাখিয়েছে?
দেখো আমার গেঞ্জির রঙ ঠিক তোমাদের
অবসরকালীন কফির মতো
কিন্তু আমাকে ব্যস্ত দেখাচ্ছে কেন?

আমি কাকে খুঁজছি আজ
চারিদিকে তো ভাঙা বাড়ি
সে সব ছবি ডিঙিয়ে
আমার শিশুতোষ চোখ—কিছুই দেখতে পাচ্ছে না
আমি শুধু মাটিতে পা রেখে হাঁটছি
একটু পরেই সেই মাটিও গুড়িয়ে যেতে পারে।

হে আকাশের মালিক—
মৃত্যুই মানুষের—সোনালি ভবিষ্যত
মৃত্যুর কোনো শিশু যুবক বৃদ্ধ নেই
কারণ আমরা ফিলিস্তিনের মানুষ
আমাদের আয়ু—ইসরায়েলি বোমায় খোদিত!

গাজাবিষয়ক মফস্বল ভাবনা

এক.

কিছুদিন হলো মেয়েটার প্রশস্ত নিতম্বে একটা ফোঁড়া উঠেছে— তার কাঁধে চেপে বসেছে টনটনে বদমায়েশ সময়;—স্পর্শকাতর জায়গা বলে কাউকে পাজামার ফিতে খুলে দেখাতে শরম পায়। ওর বয়ফ্রেন্ড নাকি এতে খুব খুশি!

ফিলিস্তিন বিষয়ে ভাবতে গেলে—এই ছেলে বন্ধুটির খুশি হবার কারণ আবিস্কারে ব্যর্থ হই।

দুই.

ধ্বংসের দোয়া নিয়ে যারা সান্ত্বনা কুরসি পাঠ করে— তারা এতো মাতোয়ারা কেন? ইসরাইল তুমি বেড়েই যাচ্ছো—ঐ আঙিনার পেঁপে গাছটার মতো। তোমার শিকড়ে যে গোবরে পোকা লেগেছে— তার শক্তি সম্পর্কে তোমার তালিমে বসা বাঞ্চনীয়।

গাজার আকাশের দিকে তাকিয়ে দেখি—ঈশ্বর নিজের এক হাত দিয়ে অন্য হাতে আগুন লাগিয়ে দিলেন! একই সাথে কান্না ও হাসি আয়োজন— একান্ত তার শোভনীয় জয়!

মৃত্যুর সমাবেশে আমির বললেন— মাতৃভূমি রক্ষার তাগিদে কারা কারা শহীদ হতে চাও?

তিন.

মুততে মুততে মনে পড়লো— হত্যার চে যুদ্ধ আর যুদ্ধের চেয়ে হত্যা দামি। যেমন শান্তির চেয়ে যুদ্ধ।

পলিয়ার ওয়াহিদ


জন্ম ২৬ শে ফাল্গুন। পাঁজিয়া, কেশবপুর, যশোর। 
পিতা গোলাম মোস্তফা সরদার ও মা ছাবিয়া বেগম।
পেশা: সাংবাদিকতা
আগ্রহ: কবিতা
সম্পাদক : ভাবযোগ
দূরালাপনী : ০১৭১০-৪৪২০৪৪
মুখবই : poliar Wahid
হাওয়া-ডাক : mohua442044@gmail.com

প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ : 
পৃথিবী পাপের পালকি—  প্রথম প্রকাশ-২০১৫
সিদ্ধ ধানের ওম—  প্রথম প্রকাশ-২০১৬
হাওয়া আবৃত্তি— প্রথম প্রকাশ-২০১৬
মানুষ হবো আগে— প্রথম প্রকাশ-২০১৭
সময়গুলো ঘুমন্ত সিংহের— প্রথম প্রকাশ-২০১৮
দোআঁশ মাটির কোকিল— প্রকাশ-২০২০

পুরস্কার: কৃত্তিবাস, তারাপদ রায় সম্মাননা, কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: