ফুল দেখলেই মন বলে বাগানে যাই

ফুল আগুনে পুড়ি

তোমার প্রাণের পদ্মজলে ডুব দিয়েছি ডুব,
আমি
তোমায়
ভালোবাসি খুব…
ভাবনা বনের ফুল আগুনে দিবানিশি পুড়ি,
শ্রাবণ ভুবন আকাশ জুড়ে
কেবল আমি উড়ি
কেবল আমি উড়ি…

দেখি পৃথিবীর মাপে মাপে তোমার ছবি

কেবল তোমাকেই ভালোবাসি
কেনো যে হলো মন এমন পাখি
উড়ে উড়ে কেবল যায় তোমার বাড়ি।
ফুল দেখলেই মন বলে বাগানে যাই
ফুল দেখলেই তোমার চোখের দ্যুতি
আমাকে ভাসায় বাসন্তি রঙ হাওয়ায়।
ভালোবাসাও বোধ হয় এক ধরনের অসুখ
কর্কট জ্বর
প্রগল্ভ উত্তাপে পোড়ায় মন
তোমার উষ্ণ স্পর্শই তার আরোগ্যের ওষুধ।
তোমাকে ঘিরেই আমার স্বপ্নগুলো পল্লবিত
তোমাকে ঘিরেই রাত নামে
ফোটে উষার আলো,
তোমার ভালোবাসার ঢেউয়ে ভেসে ভেসে
তোমার ভালোবাসার চুম্বন স্পর্শেই আমার যতো সজীবতা,
আমি তাকাতে চাই পৃথিবীর এপথে ওপথে
দেখি পৃথিবীর সব পথ চলে গেছে
তোমার উঠোনে
দেখি তুমিই আমার সমস্ত পৃথিবী
দেখি পৃথিবীর মাপে মাপে কেবল তোমার ছবি।

প্রিয় একটি শব্দের প্রার্থনা

কতোদিন ধরে খুঁজে চলেছি
পৃথিবীর পথে পথে, অভিধানে অভিধানে
আর্কাইভ থেকে আর্কাইভে
খুঁজে চলেছি যুগ-যুগান্তর ধরে একটি নাম,
একটি মাত্র নাম
যে নামে তোমাকে ডাকবো প্রিয়তম
যে নাম হবে মধুঝরা সম্ভাষণ।
জীবন পড়ে আছে এখনো ঢের
এখনো পড়ে আছে পথে দীর্ঘ পথ,
যেটুকু রেখে এসেছি
যেটুকু ফেলে এসেছি
সেখানে ডাকেনি কোকিল
কোকিলাসন হাসেনি বসন্ত বাওড়ি হাওয়ায়।
কেউ একজন আড়ালে আড়ালে আড়ে আড়ে দেখেছে
কেউ একজন চিরল চুলের সুগন্ধি ছড়িয়ে
বাগানের দিকে গেছে,
আমি ওলট পালট করে খুঁজেছি-
না, বাগানে ফুল উড়েনি কোথাও
শুধুই হলুদ পাতাদের অকারণ হাতছানি।
বসন্ত, হায় বসন্ত আমার-
কতোদূর আর কতোদূর গেলে
প্রিয় নাম প্রিয় অক্ষরের বন্ধনে ভাসে
অথবা ভাসবে হিরকোজ্জ্বল শব্দের মুখ!
এই যে আমার সুবেহ-সাদেক থেকে শুরু
এবং এই ভাবে প্রার্থনায় কাটে প্রতিদিন
তবে কেনো বলেনা কবুল ঈশ্বরের দরবার?
আকাশ থেকে এতো কিছু আসে
পাতাল থেকে এতো কিছু আসে
শীতের হিমে গ্রীষ্মের দাহে অঝোর শ্রাবণ ধারায়
প্রিয়তম শব্দ কেনো ফোটে না কোথাও
তোমাকে ডাকবো বলে
একটি মাত্র শব্দ কেনো ফোটে না
যে শব্দ হবে শুধু আমার, শুধুই আমার
তোমাকে ডাকার তোমাকে ডাকার জন্য
একটি মাত্র শব্দ মধুঝরা জোছনাঝরা!
অমরত্বের লোভ নেই
ছিলো না কোন কালে,
আমি হেঁটে যাবো
আমি হেঁটে হেঁটে যাবো আমৃত্যু পৃথিবীর পথে
সাগরে সাগরে পাহাড়ে পাহাড়ে
বনভূমির মৌনতা ভেঙে খুঁজে খুঁজে যাবো
প্রিয়তম তোমার জন্য একটি শব্দ
মধুঝরা জোছনাঝরা একটি ডাক নাম
ডেকে ডেকে যাবো কেবল আমি একাই
তোমাকে পাই বা নাপাই, পাই বা নাপাই
ডেকে ডেকে যাবো অনন্তকাল!

একলা পথিক

একাকীত্ব পথ হুহু করা ঝরাপাতা
বিষণ্ন বাতাসে উড়াউড়ি
অসহায় শ্মশানযাত্রীর,
কখনো কখনো মনে হয় কাছাকাছি কবর
মনে হয় একাকী চলা মানে
মৃত্যুর মতো যন্ত্রণাকে বুকের গহীনে লালন।
মনে হয় মেঘের ভেলায় ভেসে যাচ্ছি
না স্বজন না শুভার্থী না প্রিয়তমার আশ্বাস ধ্বনি শুনছি,
মনে হয় বলছে না কেউ ডেকে ডেকে
একা নও তুমি, সাথে আছে আমার ভালোবাসার কবজ
বলছে না কেউ পথের শেষে হাত বাড়িয়ে আছি।
কখনো কখনো মনে হয় ভালোই তো আছি
মানুষতো মূলতই একা,
সুতরাং ভুলে যাওয়া উচিত সেইসব দিন
যেখানে রেখে ছিলাম আকুল প্রেম
বুনে ছিলাম সোনালী সময়ের সুর।
কেন জানি মনে হয়
দূর বনে সন্ধ্যা নেমে গেলে
পাখিরাও ফিরে যাবে নীড়ে
ফিরে যাবে মানুষ ভালোবাসার বাহুডোরে
কেবল আমিই একা একলা পথিক এপথে ওপথে।

কখন আসবে তুমি

সময় আটকে আছে সময়ের কালো হাতে
অন্ধকার হাঁটু ঘেরে বসে আছে পেঁচার মুখের মতো,
ঘড়ির কাঁটার কি অসুখ?
মৃত মাছের মতো অচঞ্চল
কার অপেক্ষায় থেকে থেকে
বহু বছরের অবসাদ নিয়ে
কান্নার মতো পড়ে আছে করুণ কানকো।
তোমার তো আসার কথা ছিলো
তুলতুলে আলোর মতো
টোলপড়া গাল ভরা হাসি ছড়িয়ে।
বেসিনে টুপটাপ পানি পড়ছে
বাড়ির সামনে বড় রাস্তায় সারি বেঁধে গাড়ি
হর্ণ বাজিয়ে যাচ্ছে
হর্ণগুলো মনে হচ্ছে অন্তিম যাত্রার বিউগল
বেসিনের আওয়াজে বিরহকাতর মানবের ছবি।
একটি পাখি একা একা উড়ছে
তার পালকে শত শতাব্দীর বিষণ্নতা,
হাসপাতালের মতো মনে হচ্ছে পুরো শহর
তুমি না এলে আমাদের শহরে ভেঙে যাবে সব শৃঙ্খলা
কখন আসবে তুমি, কখন সে সুবর্ণ লগন!

হাসানাত লোকমান

হাসানাত লোকমান

জন্ম- ৯ মে ১৯৬৯, সাইটধার, নিকলী, কিশোরগঞ্জ। 

পেশায় সরকারি আমলা। (যুগ্মসচিব, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব), ময়মনসিংহ।) 

আগ্রহ মূলত ছড়া ও কবিতা।

প্রকাশিত কবিতা গ্রন্থ : 
 উঠে আসে কঙ্কাল (যৌথ ১৯৮৭) 
 শ্রাবণের হৃদয় নদী (যৌথ ১৯৮৯) 
 আলোর নদী জলের আকাশ (১৯৯২) 
 অন্তরে অনন্ত বেলা (২০০৫)
 আলোর নদী জলের আকাশ (২০১২)
 জোছনার বনে নীল বসন্ত (২০১৩)  
 প্রেমের প্রজ্ঞাপন (২০১৪) 
 প্রাণ পতনের শব্দাবলী (২০১৫)
 অক্ষরের নক্ষত্র দীপাবলি (২০১৬)
 তুই (২০১৭) 

প্রকাশিতব্য কবিতাগ্রন্থ-
অন্তঃস্বত্তা অভিমান 
ইমেইল- hasanatlokman6337@gmail.com

One thought on “ফুল দেখলেই মন বলে বাগানে যাই

  • Avatar
    May 8, 2019 at 6:26 pm
    Permalink

    বেশ সাবলীল লেখা। চমৎকার শব্দাবলির মালা গেঁথে কাব্য রচনায় পারদর্শী । ভালোবাসার কাব্য গুলো বেশ নান্দনিক । এভাবেই রচিত হোক সুন্দর সুন্দর কাব্য আপনার মসির কালিতে। শুভকামনা অহর্নিশি ।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: