পঞ্চস্বর- ১

আজগর আলী

১. প্রমাদ

বিএনপি কেন সংসদে যোগদান করলো!
সে আলোচনা এখন থাক
বরং আমরা কথা বলতে পারি গণতন্ত্রের ন্যায্যতা নিয়ে।
যে গণতন্ত্র ট্রাম্পকেও রাজা করে ছাড়লো
কিংবা মোদিকেও বানালো অবতার!
সে গণতন্ত্র থাকলেইবা কী, মারা পড়লেইবা-
কী আসে যায় আর!
মির্জা ফখরুল হয়তো কাঁদতেই পছন্দ করেন
তাকে কাঁদার পূর্ণস্বাধীনতা দিয়ে
বরং আমরা চলুন খোঁড়া গণতন্ত্রের খুচরো অংশটাকে
জ্যান্ত কবর দিয়ে দিই বঙ্গবন্ধু, ভাসানী কিংবা শহীদ জিয়ার মাজারে

যে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে গেলে লাগে ভোট
লাগে রক্ত, লাগে মা-বোনের সম্ভ্রম ও ইজ্জত!
ছাত্রলীগ কিংবা তারেককে নিয়ে কথা বলার রুচি না থাকলেও চলে
কিন্তু, যে গণতন্ত্র চোরকে ডাকাত বানায় আর ডাকাতকে বানায় খুনি!
ফর বেটার অ্যান্ড দ্যা গ্রেটার ইন্টারেস্ট অব দি নেশন
চলুন গণতন্ত্রের শোক ভুলে গিয়ে কোনো এক বহুজাতিক কোম্পানির
কাছে চড়াদামে দেশের মালিকানা বুঝিয়ে দিয়ে
তুলনামূলক শান্তিপূর্ণভাবে মরার প্রমাদ গুনি।

২. নস্টালজিক

চোখের ভুলে
লুকিয়ে রেখে ক্ষত
গুনছি খালি
আড়াল করার দিন
খুন করছি তাতে
সময়ও অংশত
বিলিয়ে দিচ্ছি
গুল্মকালের ঋণ
নদীর ভাষায়
গল্প বলার ছলে
খেলছে বিলে
পানকৌড়ি আর মীন
মুলি বাঁশের রঙতুলিতে
কার্যত সঙ্গীন
বিঁধে গেলো
কথা বলার কলে
আমার এখন
দুচোখভরা জল
ঝাঁপসা দেখি
হরিণডাঙার চর
উড়ছে সেথা কালোমত
অচেনা খেচর
ঘুমিয়ে যাচ্ছে আহা
সারা ক্ষুদ্রকাল
জড়িয়ে আসে ঠোঁটে
অশ্রুত সংলাপ
হাওয়ার ছাঁটে মিলিয়ে
যাচ্ছে সহস্র বিলাপ

শরীফুল ইসলাম

১. একলা পথে

সুখের তরী দুঃখের তরী
সব তরীতেই ভেসে দেখি
এক আমি সই
একলা পথেই পথ চলছি
একলা কথা কই।
একলা একাই হেঁটে হেঁটে
হারিয়ে যাবো দূরের পথে
গাছের ছায়ায় ঘাসের মায়ায়
নিরিবিলি অচিনপুরে।

২. ইচ্ছে মতো পোড়াও

এক হৃদয়ের সবুজ পোড়াও
সাত সমূদ্র স্বপ্ন পোড়াও
জমিন পোড়াও শস্য পোড়াও
শাপলা শালুক কলমি পোড়াও
গোলাপ ভরা বাগান পোড়াও
যত পারো তত পোড়াও
দগ্ধ হৃদয় আপন মনে
চিরল চিরল সুখের খোঁজে
ছুটবে কেবল তোমার পানে।

সাঈদ শ’

১. সংসার

কোনো কোনো দিন বাবা
সন্ধ্যায় দেরি করে ফেরেন
মা বাজারের অপেক্ষা করতে করতে
নলকূপের জলে চোখ ধুয়ে নেন

যেদিন বাবা ফেরেন না
ঘর অন্ধকার করে
ছোটোভাইটি মোমবাতির
আগুন কাটে ব্যগ্র আঙুলে

নিঝুম নীরবতায় চারপাশ-
বাড়ির ছাদে ন্যুয়ে পড়ে বিবশ ছায়া

সেদিন মা, উঁনুন জ্বালিয়ে
চুলোয় খুদ বসান
আমরা তাতে পাঁচমিশালি
মায়া রেঁধে খাই..

২. মৃত্যু

চোখের আলো জ্বালিয়ে রেখেছি
বোবা ল্যাম্পপোস্টের মতন

হাঁটার কৌশল শিখি
বহুজাতিক পথে কাছে;
ভ্রমণে মেতে উঠি- অনিঃশেষ

প্রতিমুহূর্তে, নিয়ত
গোপনে লুকানো ক্রুট ফেলে
পেরিয়ে যাই, সতর্কে

যেন মৃত্যু এখানে-
হোঁচট খেয়ে পড়া দৃশ্যটি।

আল মামুন

১. মোলাকাতের গল্প

সপ্তাহ শেষের রাতকে পাশ ঠেলে
আকাশের কপালে উঠেছিল যেই নবীন সূর্য,
তার আলোয় আমি দেখেছিলাম তোকে,
রাত্রির কবরের পাশে- ভোরের তরুণ বাগানে।
আমাদের পায়ের কাছে বয়ে চলা স্বর্গগঙ্গায়
ডুবে গিয়েছিল অগ্নিদগ্ধ তেইশটি গ্রীষ্মকাল।

একলা তারার মতন কাটিয়েছি বিজন ইহকাল।
আসমানের পরপারে উড়েনি অলৌকিক ঘোড়া।
নীলিমায় হাটেনি পদাতিক প্রেম।
অথচ, তুই এসে সামনে দাঁড়াতেই—
চোখ হতে ঝরে পড়ে লজ্জার যমজ পাতা।
তৃষ্ণার চামচ ভরে আসে অমৃত শরাবে…

২. পাপমোচন

গরম বালুকায় এক জীবন হেটে গেলে পরে
যেভাবে পথিক নত হয়ে আসে সমুদ্রের কাছে
আমিও তেমন নতজানু হয়ে আছি তোমার সুমুখে।
সমুদ্রস্নান চেয়ে কেমন নুয়ে আছি দ্যাখো
কাঙ্ক্ষিত প্রার্থনায়।
শরীর জুড়ে লেগে আছে নুনহীন ক্লান্তির দাগ
আমাকে প্রবেশ করতে দাও তোমার ভিতরে, আর
মেখে নিতে দাও আদুরে পরাগ, যেন
মুছে যায় পাপ আমার- তোমার সামুদ্রিক নোনাজলে।

জাকারিয়া প্রীণন

১. সহবাস

বকুল পাতার ঢঙে বাতাস ঝরে গেলে;
নরম হাওয়ার নিচে; শুয়ে থাকে রোদ
যেন
ধানের ক্ষেতের পর, নেমে আসা আকাশ;
পৃথিবীর দিকে হেঁটে গেছে সবুজের রঙে।
শুধু
তোমার শরীর;
ফনাতুলা সাপের নিচে- সবুজ আলোর ভেতর রক্তপ্রতীম,
যেন ধূলোর গায়ে
আম্রনিবাস; ভূতের মতো লীন হয়ে আছে
সঙ্গম পূর্ব নারীর মহিমায়।

২. হেঁশেল

লাগামহীন পথের ধূলোয়; অবোধ শিশুর মতো
লেপ্টে আছে হারানো ট্রেন
ফাঁকা স্টেশনে লেজ উঁচিয়ে সভ্যতাকে ব্যঙ্গ করছে কুকুর
আমাদের আর দেখা হবে না জেনে-
সোমেশ্বরীর জল খেয়ে গর্ভধারীনি জোৎস্না
উগরে দিচ্ছে অমারাত্রির পোষাক
.
বন-বৃক্ষের আড়ালে ঢাকা পড়েছে সূর্য
লৌড়ে নামা বৃষ্টির মাঝে;
একদল সংশয়ী পাখি আসে যায়
মেহগনী গাছের চাতালে
.
কাঠঠোকরা ঠোকে যাচ্ছে বন্ধনী প্রেমের সুঁতো
ভালোবাসা আর ত্যাগের বন্ধনে বুদবুদ উঠে বিরহী হেঁশেলে;
যেখানে তোমার হাত, পা, চোখ
এবং
আমাদের ভালোবাসার সমীকরণ।

Avatar

শাহীন তাজ

জন্ম ২ জানুয়ারি ১৯৯৩, গফরগাঁও, ময়মনসিংহ। 

পেশায় কলেজ শিক্ষক। আগ্রহ কবিতা, ছড়া ও কথা সাহিত্য। 

সম্পাদক-

সাহিত্য সমাচার (ত্রৈমাসিক)
কিশোর আনন্দ (কিশোর ম্যাগাজিন), 
গফরগাঁওয়ের সাহিত্য (অনিয়মিত) 
মানুষ (কবি ফারুক সংখ্যা)

ওয়েবজিন সহজাতের উদ্যোক্তা ও নির্বাহী সম্পাদক। 

প্রকাশিত গ্রন্থ-
গল্পগ্রন্থ - আমার প্রথমা (২০১৪)
এবং 
কবিতাগ্রন্থ- সেলাইকল (২০১৮) 

মোবাইল- ০১৮৭৮-৩৫৩৫৮৮
ইমেইল- mrshaheentaj@gmail.com 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

পঞ্চস্বর- ১

লেখকঃ শাহীন তাজ